1. [email protected] : jashim sarkar : jashim sarkar
  2. [email protected] : mohammad uddin : mohammad uddin
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০২:০২ পূর্বাহ্ন

ইঞ্জিনিয়ারদের ভবিষ্যতের নিরাপত্তার জন্য লাইফ ইন্সুরেন্স !

বন্ধুরা আজ এসেছি আপনাদের মাঝে আমরা যারা ইঞ্জিনিয়ার আছি তাদের নিয়ে একটু আলাদা ভাবনা নিয়ে। এই পষ্টটার শিরনাম দেখে বোঝা যাচ্ছে এটা আমাদের জীবনের নিরাপত্তার জন্য লিখা। এখানে সহজ ভাষায় লাইফ ইন্সুরেন্স(life insurance)সম্পর্কে জানানোর প্রচেষ্টা করা হয়েছে।

১। লাইফ ইন্সুরেন্স কাকে বলে?

লাইফ ইন্সুরেন্স হচ্ছে একধরনের চুক্তি যেখানে লাইফ ইন্সুরেন্স গ্রহন করা বেক্তি তাঁর চুক্তি অনুযায়ী নির্দিষ্ট পরিমান অর্থ এককালীন অথবা একটা সময় নির্ধারণ করে ধিরে ধিরে কিস্তি দিতে প্রতিদান করেন । আর এই নির্ধারিত সময়ের মাঝে যদি ইন্সুরেন্স গ্রহন করা বেক্তির মৃত্যু অথবা নির্ধারিত সময়ের সীমা শেষ হয়ে গেলে ইন্সুরেন্স গ্রহনকারী নির্ধারিত পরিমান অনুযায়ী টাকা পেয়ে থাকেন. এক কথায় একেই লাইফ ইন্সুরেন্স বলা হয়ে থাকে।

২। ইঞ্জিনিয়ারদের লাইফ ইন্সুরেন্স কেন ?

সাধারনত ইঞ্জিনিয়ারদের যেসব কাজ হয়ে থাকে সেগুল বেশ ঝুঁকিপূর্ণ আর এসব কাজ করতে গিয়ে অনেক সময় নানারকম বিপদের সম্মখিন হতে হয় ইঞ্জিনিয়ারদের । তাই জীবনের নিরাপত্তার জন্য হলেও প্রত্যেক ইঞ্জিনিয়ারদের লাইফ ইন্সুরেন্স করাটা জরুরি, কারন একজন ইলেক্ট্রিক্যাল অথবা ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারের একলা নিরাপত্তার জন্য নয় তার পরিবারও প্রায় অনেকটা নির্ভর করে তাঁর উপরে । তাই লাইফ ইন্সুরেন্স করাটা সকল ইঞ্জিনিয়ারদের জন্য খুবই জরুরি।

৩। আমাদের দেশে কতোগুলো লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি আছে?

আমাদের দেশে অনেক রকমের ইন্সুরেন্স রয়েছে তার মাঝে আজ আমরা লাইফ ইন্সুরেন্স নিয়ে আলোচনা করব এবং কি কি লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি আছে বাংলাদেশে সেগুলো জানার চেস্টা করব । বাংলাদেশে ননলাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি আছে তেতাল্লিশ (৪৩)টা আর লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি আছে মোট সতেরটা (১৭)।

আজ যেহেতু আমরা লাইফ ইন্সুরেন্স নিয়ে আলোচনা করব তাই সেগুলো তুলে ধরা হলঃ

১। ডেল্টা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি, ২। বাইরা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি, ৩। আমেরিকান লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি ( বাহিরের কোম্পানি ), ৪।ফা্রইস্ট ইসলামি লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি, ৫।মেঘনা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ৬। হোমল্যান্ড লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ৭। ন্যাশনাল লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ৮।পপুলার লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ৯। পদ্মা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ১০।প্রগ্রেসিভ লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ১১। প্রাইম ইসলামি লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ১২। সানফ্লাওয়ার লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ১৩।সন্ধানি লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ১৪। রুপালি লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ১৫। সানলাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, ১৬। প্রগতি লাইফ ইন্সুরেন্স, ১৭।গোল্ডেন লাইফ ইন্সুরেন্স লিমিটেড।

উপরের মোট সতেরটা (১৭)টা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি আছে বাংলাদেশে । এদের মাঝে আবার ক্যাটাগরি আছে, আপনি যদি লাইফ ইন্সুরেন্স করতে আগ্রহী হন তাহলে আপনাকে এ প্লাস(A+) ক্যাটাগরিতে লাইফ ইন্সুরেন্স করা উচিত । কারন তাদের সার্ভিস অন্নগুলোর তুলনায় ভাল হবে এটাই স্বাভাবিক।

৪।বাংলাদেশের লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি কেমন সুবিধা দেয়?

বাংলাদেশের নিয়ম অনুযায়ী লাইফ ইন্সুরেন্স দুই ধরনের হয়, একটা মেয়াদি লাইফ ইন্সুরেন্স আরেকটা আজিবন লাইফ ইন্সুরেন্স। আজিবন লাইফ ইন্সুরেন্স গুলোর প্রিমিয়াম এল লক্ষ(১,০০,০০০) টাকা থেকে শুরু করে আশি লক্ষ (৮০,০০,০০০)টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে। আর এগুলোর মেয়াদ বিশ(২০) বছর থেকে শুরু করে ত্রিশ (৩০) বছর হয়ে থাকে । আবার যারা স্বল্পমেয়াদী হেল্‌থ পলিসি করে তাদের জন্য আবার মোট প্রিমিয়াম বিশ(২০) হাজার টাকা থেকে এক লক্ষ ষাট(১,৬০,০০০) হাজার টাকা হয়ে থাকে . আর এগুলোর মেয়াদ সাধারনত পাচ(০৫) বছর হয়ে থাকে। স্বল্পমেয়াদী হেল্‌থ পলিসির টাকা আবার এককালীন পরিশোধ করা লাগে।

আজিবন মেয়াদে লাইফ ইন্সুরেন্স করতে গেলে খরচ বেশি হয় কারন মেয়াদ শেষ হবার পরে থেকে শুরু করে কয়েক দশক পর্যন্ত বেনিফিট দিতে হতে পারে লাইফ ইন্সুরেন্স কম্পানিকে। সেই ক্ষেত্রে স্বল্পমেয়াদী লাইফ ইন্সুরেন্স করতেগেলে খরচ কম পরে।

আসলে লাইফ ইন্সুরেন্স আমাদের সকলের জন্যই প্রয়োজনীয়, এখানে আমরা কেবল আলাদা করে বলার চেষ্টা করেছি কারন ইলেক্ট্রিক্যাল এবং ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারদের লাইফ ইন্সুরেন্স নিয়ে তেমন কথা বলা হয়না।

আরো পড়ুন