1. [email protected] : jashim sarkar : jashim sarkar
  2. [email protected] : mohammad uddin : mohammad uddin
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:৩৫ অপরাহ্ন

চীন এখন শিক্ষা গবেষণার hub-এ পরিণত হয়েছে!

আগামী ১০-২০ বছরের মধ্যে এই পরিবর্তন এমন ব্যপকতা লাভ করবে যে পশ্চিমা দেশের মানুষ চীনে পিএইচডি আর পোস্ট-ডক পেতে উম্মুখ হয়ে খুঁজবে। ইতিমধ্যে যে ঘটনা ঘটে গেছে সেটা হলো পৃথিবীর সেরা গবেষণা সেন্টার এখন চীনে।

5-8 জানুয়ারীতে অনুষ্ঠিতব্য কনফারেন্স হবে চীনের Hangzhou Normal University-র Alibaba Research Center for Complexity Sciences!

আশা করি এই আলিবাবার নাম সকলেই শুনেছে। এটি আমাজন ডট কমের মত বিশ্বসেরা অনলাইন বেসড ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান। এটা প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৯৯ সালে আর ২০১২ সালেই এর মূলধন ১৭০ বিলিয়ন ডলার যা বাংলাদেশ ব্যাংকে বৈদেশিক মুদ্রার রিসার্ভের ৫ গুনেরও বেশি। ইতিমধ্যে তারা মৌলিক বিজ্ঞান গবেষণাতেও বিনিয়োগ করছে এবং সেটা করছে আর্থিক মুনাফা অর্জনের জন্য নয় বরং সামাজিক দায়িত্ববোধ থেকে।

ঠিক যেমন ভারতের টাটা। যেকিনা জগৎবিখ্যাত Tata Institute of Fundamental Research করে পৃথিবীর বড় বড় বিজ্ঞানীদের তীর্থস্থানে রূপান্তরিত করছেন। ওই ইনস্টিটিউটের ভিতরে গেলে কেউ বুঝতেই পারবে না ওটা কি ভারতে না আমেরিকায়।

আর আমাদের ব্যবসায়ীরা কি করছে? টাকা লগ্নি করে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় বানায়। কারণ অন্য যেকোন মিল কারখানা থেকে এখানে লাভ বেশি। এদের মাথার মধ্যে সোশ্যাল রেসপনসিবিলিটি বলতে কিছু নেই। এই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে যে লাভ হয় তার সিংহভাগ তারা নানা ছলচাতুরি করে নিয়ে নেয়।

পৃথিবীর কোন প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কোন ব্যক্তি একটি কানা করিও নেয় না। এই লাভ যদি না নিত তাহলে ওই লাভ reinvest করে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আরো অনেক এগুতে পারতো। তাছাড়া টিউশন ফীও অনেক কম হতে পারতো।

কিছুদিন আগে UGC থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে যে কোন প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় যেন বিদেশী নাগরিককে শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ না দেয়। অথচ করা উচিত ছিল ঠিক তার উল্টোটি। কেন বাংলাদেশের অন্যসব প্রফেশনে বিদেশীরা কাজ করতেতো কোন বাধা দেখি না। শুনিতো বিভিন্ন প্রাইভেট সেক্টরের সকল বড় পদ দখল করে আছে বিদেশিরা। ওখানে কোন সমস্যা নেই। অথচ যেখানে বিদেশীরা চাকুরী করলে দেশের ছাত্রছাত্রীরা উপকৃত হবে সেখানে কেন এই প্রজ্ঞাপন? সেখানে কেন বাঁধা?

বিদেশিরা আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে নিয়োগ পেলে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সত্যিকারের বিশ্ব বিদ্যালয় হতো। এখনতো আমরা এগুলোকে স্থানীয়বিদ্যালয় বা বনসাই বিদ্যালয় বানিয়ে রেখেছি। বিদেশী ভালো শিক্ষক নিয়োগ পেলে ছাত্রছাত্রীরা একটা কসমোপলিটন পরিবেশ পেত। পড়াশুনার আন্তর্জাতিক মান পেত। যেই ধরণের মানুষজনকে UGC বসানো হয়েছে তাদের মাথায় কি সেটাই আমার গোবর মাথায় ধরে না।

আরো পড়ুন