1. powerofpeopleworld@gmail.com : jashim sarkar : jashim sarkar
বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:২১ অপরাহ্ন

ফেসবুকের নীতিমালা পড়ুন, ফেসবুক ব্যবহারের আগে ?

ফেসবুক আমার প্রিয় একটি সামাজিক যোগাযোগের সাইট। কিন্তু বর্তমানে এই ফেসবুক ব্যবহার করতে গিয়ে অনেক সমস্যায় পরছি।

এর মূল কারন হলো কিছু অজ্ঞ মানুষ না বুঝেই ফেসবুক ব্যবহার করছে। যারা ফেসবুকে নতুন এবং যারা পুরাতন তাদের মধ্যে পার্থক্য কমানোর জন্য এই পোস্টটি লিখলাম। কারো কাজে আসলে লেখা সার্থক হবে।Friend Request: ফেসবুক সামাজিক যোগাযোগের নেটোয়ার্ক। তাই এখানে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠানো ও এক্সেপ্ট করার কিছু নিয়ম আছে। আপনি কোন নতুন প্রোফাইল খুললে তা থেকে একসাথে অনেক রিকোয়েস্ট পাঠালে আপনার রিকোয়েস্ট ব্লক করে দেওয়া হবে। অপরিচিত কাউকে রিকোয়েস্ট পাঠানো উচিত নয়। আবার অপরিচিত কারো রিকোয়েস্ট এক্সেপ্ট করাও অনুচিত।

Mutual Friend দেখে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট এক্সেপ্ট করা উচিত। এতে নানান হয়রানি দেখে মুক্তি পাওয়া যায়। অতিরিক্ত ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট সেন্ড করলে আগে আপনাকে ওয়ার্নিং দেওয়া হবে। তারপর আপনার আইডি ভেরিফাই করতে বলা হবে। তারপরও কথা না মানলে আপনার ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট ব্লক করে দেওয়া হবে যথাক্রমে ৭দিন,১৫দিন,১মাস ও তারপর আইডিই ডিসেবল করে দেওয়া হবে।

ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট এলে তা ঝুলিয়ে না রেখে এক্সেপ্ট অথবা রিজেক্ট করে দেওয়া উচিত। অনেক রিকোয়েস্ট জমে গেলে আপনাকে পরে আর কেউ রিকোয়েস্ট পাঠাতে পারবেনা। ফেইক আইডির রিকোয়েস্ট এক্সেপ্ট না করে রিপোর্ট ও ব্লক করে দিলে ভালো হয়।

Groups: ফেসবুকে অনেক গ্রুপ রয়েছে। নানান কাজে এসব গ্রুপ ব্যবাহার করা হয়। কারো অনুমতি না নিয়ে কোন গ্রুপে তাকে এড করা উচিত নয়। এতে অনেক সময় বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পরতে হয়।

কোন গ্রুপে পোস্ট করার পুর্বে দয়া করে ঐ গ্রুপের প্রাইভেসী দেখে পোস্ট করবেন। প্রাইভেসী Public দেওয়া থাকলে আপনি যা পোস্ট করবেন তা ঐ গ্রুপের মেম্বার ছাড়াও অন্য যে কেউ দেখতে পারবে। Closed দেওয়া থাকলে শুধু গ্রুপ মেম্বাররা দেখতে পারবে। আর যদি Secret দেওয়া থাকে তাহলে আপনার পোস্ট তো নই-ই আপনি ঐ গ্রুপের মেম্বার কিনা তাও গ্রুপ মেম্বার বাদে কেউ জানতে পারবে না।

মাসে অন্তত একবার আপনি যেসব গ্রুপে এড আছেন সেগুলো চেক করে অপ্রয়োজনীয় গ্রুপগুলো থেকে বের হয়ে আসুন। অনেক বেশি গ্রুপে থাকলে পরে আপনাকে কেউ কোন গ্রুপে এড করতে/আপনি নিজেও এড হতে পারবেন না।

Pages: ফেসবুকে নানান পেইজ রয়েছে। পেইজ মূলত বানানো হয় কোন কম্পানী বা প্রোডাক্টকে সবার সামনে তুলে ধরার জন্য। কিন্তু এখন এটি আরো নানা কাজে ব্যবহ্রত হচ্ছে। ফেসবুকে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে নানান কাজের ও অকাজের পেইজ।

কোন পেইজে লাইক দেবার আগে সে পেইজটি কিসের পেইজ,তাদের কাজ কি এবং পেইজের পুর্বের পোস্টগুলো পড়ে পছন্দ হলে তবেই লাইক করুন। এছাড়াও পেইজটি কয়জন লাইক করেছে এবং তাদের মধ্যে আপনার বন্ধুরা আছে কিনা তা দেখে নিন।

কিছু পেইজ আছে যারা মুখোশের আড়ালে অনেক আপত্তিকর,অশ্লীল ও ভিত্তিহীন পোস্ট করে। এসব পেইজে লাইক দিয়ে থাকলে তা আনলাইক করুন এবং একটু কষ্ট করে রিপোর্ট করে দিন।

আপনার কোন পেইজ থাকলে তার ফ্যান বাড়ানোর জন্য অহেতুক শেয়ার করবেন না। অন্যান্য পেইজের ওয়াল ও পোস্টে বিজ্ঞাপন দিবেন না। এটি খুবই বিরক্তিকর। ফ্যান বাড়াতে হলে বন্ধুদের ইনভাইট করুন। ভালো ভালো পোস্ট দিন আর অন্যান্য ছোট-বড় পেইজ এডমিনদের সাথে ভাব করুন। ফেসবুকে পেইজ এডমিনদের অনেক গ্রুপ রয়েছে যেখানে প্রমোট আদান-প্রদান করে ফ্যান বাড়ানো যায়।

আপনাদের নিকট আকুল আবেদন এক ক্যাটাগরির পেইজে অন্য ক্যাটাগরির পোস্ট বা বিজ্ঞাপন দিবেন না। এতে ফ্যানেরা বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পরে।

Events: ফেসবুকে অনেক ইভেন্ট খোলা হয়। এসব ইভেন্টেরও অনেক আদব কায়দা আছে।
কোন ইভেন্টে যোগ দেবার আগে তার কাজ সম্পর্কে ভালো করে জেনে নিন। আপনি কোন ইভেন্ট খুললে ফ্রেন্ড লিস্টের সবাইকে ইনভাইট না করে শুধু যাদের আগ্রহ আছে মনে হয় শুধু তাদেরকে ইনভাইট করুন।

অনেক ফেইক ইভেন্ট দেখা যায় যেখানে বলা হয় আপনাকে ফ্রি মোবাইল,টাকা বা অন্য পুরস্কার দেওয়া হবে। আপনাকে ইভেন্টে যোগ দিয়ে তারপর বন্ধুদের যোগ করতে বলা হবে। যে যত ফ্রেন্ড যোগ করতে পারবে তার পয়েন্ট তত। এভাবে পুরষ্কার পাবার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে।

সাবধান এসব ইভেন্টে জীবনেও জয়েন করবেন না। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এগুলো বানানো হয় কোন ওয়েবসাইট,গ্রুপ বা কোনকিছুর প্রসার বাড়ানোর জন্য। অনেক ক্ষেত্রে এসব ইভেন্টের লিঙ্কে স্প্যাম/ক্ষতিকর সফটওয়্যার দেওয়া হয়। এভাবে আপনার একাউন্ট দখল হয়ে যেতে পারে। এসব দেখে লোভে ফাদে পা না দিয়ে সুন্দর করে ইভেন্ট রিপোর্ট করে দিন,যে এটা খুলছে তার আইডিও রিপোর্ট করুন। হাতে সময় থাকলে ইভেন্ট ওয়ালে বাকি সবাইকে সতর্ক করে দিন।

Like ও Comment: অহেতুক কারো পোস্টে ও কমেন্টে লাইক করা থেকে বিরত থাকুন। এটি খুব বিরক্তিকর। পোস্ট পছন্দ হলেই শুধুমাত্র লাইক দিন,নাহলে নয়।

Share: কোনকিছু আপনার ওয়ালে শেয়ার করার আগে ভেবে দেখুন এটি আপনার বন্ধুরা কিভাবে নিবে। অহেতুক ছবি,পোস্ট বা অন্যকিছু শেয়ার করা উচিত নয়। এতে সবার হোমপেইজ আপনার নিউজে ভরে যাবে। তারা বিরক্ত হয়ে আপনাকে আনসাবস্ক্রাইব/আনফ্রেন্ড করে দিবে।

Copy-Paste: ফেসবুকে অনেকে কষ্ট করে মাথা খাটিয়ে পোস্ট করে। আবার অনেকেই সেই পোস্ট কপি-পেস্ট করে নিজের নামে চালিয়ে দেই। এটি করা একেবারেই উচিত না। আপনি ঐ পোস্ট/ছবি কপি করার আগে তার অনুমতি নিন। নাহলে অন্তত পোস্টের পড়ে তার নাম উল্লেখ করে দিন। মনে রাখবেন আপনার প্রোফাইল হলো আপনার জীবনের একটা প্রতিবিম্ব। নিজের মাথায় যা আছে তা দিয়েই পোস্ট করুন। অতিরিক্ত লাইক-কমেন্ট পাবার আশা ছাড়ুন।

পেইজ এডমিনদের বলছি দয়া করে কারো পোস্ট নিজের নামে চালিয়ে দেবার আগে নিজের বিবেককে প্রশ্ন করুন।

Chat: ধৈর্যের সাথে চ্যাট করুন। একসাথে অনেকবার কাউকে নক করে তাকে বিরক্ত করবেন না। চ্যাটের সময় পারস্পরিক বোঝাপড়া প্রয়োজন। চ্যাটে কখনো অপ্রয়োজনীয় লিঙ্ক শেয়ার করবেন না। ফেসবুক এটি স্প্যাম ভেবে ব্লক করে দিতে পারে। অপরিচিত কারো সাথে চ্যাটিংয়ের সময় সতর্কতা অবলম্বন করুন। সবাইকে সব সময় বিশশাস করা উচিত না।

সবশেষে বলবো ফেসবুক একটি সামাজিক সাইট। এখানে সামাজিকতা বজায় রাখুন। নিজের অবস্থান ঠিকভাবে তুলে ধরুন। ব্যাক্তিগত জীবনে আপনি যেমন আপনার ফেসবুক আইডিও যেন তেমনই হয়। এখানে যা খুশি তাই করা যাবেনা। কিছু আদব-কায়দা মেনে চলুন। তাহলেই দেখবেন ফেসবুক ব্যবহার করে আপনি অনেক লাভবান হচ্ছেন ব্যাপক মজা পাচ্ছেন।

সংগ্রহ : techdreamworldbd

আরো পড়ুন