1. [email protected] : jashim sarkar : jashim sarkar
  2. [email protected] : mohammad uddin : mohammad uddin
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৩:২৫ অপরাহ্ন

মোটর নেমপ্লেট এর টুকিটাকি পর্ব- ০১

আমরা যদি কোনও মোটরের নেম প্লেট ভাল ভাবে দেখি তবে এমন অনেক লেখা পাই যার অর্থ আমরা বুঝি না। কিন্ত আমরা যদি এগুলো ভাল ভাবে বুঝি তবে কিন্ত একি রেটিং এর কোন মোটরটা বেশী ভাল বা কম ভাল তার পার্থক্য করতে পারব। তাই আজ আমার এই লেখা।

প্রথমেই আসি ভোল্টেজের কথায়। ভোল্টেজঃ ৩ ফেজ মোটরগুলোতে প্রায়ই এভাবে লেখা থাকে “230Δ/400Y (13.6A/7.8A)”. এখানে ব্রাকেটের ভেতরের লেখাটা হচ্ছে মোটরের কারেন্ট।মনে করি এটা একটা চার কিলোওয়াটের ৩ ফেজ ইন্ডাক্সন মোটর। মোটরটা দুইটা ভিন্ন ভোল্টেজে চালানো যাবে।মনে করি, আমার কাছে ৩ ফেজ পাওয়ার এসেছে ৩ টা তার দিয়ে। এখন যেকোনো ২ তার এর মধ্যে যদি আমি ২৩০ ভোল্ট পাই তার অর্থ আমার লাইন ভোল্টেজ হচ্ছে ২৩০ ভোল্ট। এখন আমি যদি এই মোটর থেকে ৪ কিলোওয়াট আউটপুট পেতে চাই এই ২৩০ ভোল্ট দিয়ে তবে আমাকে তখন মোটরটা অবশ্যই ডেল্টাতে কানেক্ট করতে হবে এবং তখন এই মোটরটা কারেন্ট নিবে 13.6 A. আর আমার যদি লাইন ভোল্টেজ থাকে ৪০০ তবে ৪ কিলোওয়াট পাওয়ার তৈরিতে আমাকে তখন মোটরটা কানেক্ট করতে হবে স্টার এ এবং তখন মোটরটা কারেন্ট নিবে 7.8 A.

এখন কিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা বলি। যদি আমার লাইন ভোল্টেজ থাকে ২৩০ তবে মোটরটা আমি স্টার এ চালাতে পারব কিন্তু তখন মোটরটা তার আউটপুটের ৩ ভাগের প্রায় ১ ভাগ আউটপুট দিবে এবং যেই সকল মোটর ডেল্টাতে তাদের ফুল আউটপুট দিয়ে থাকে তাদের স্টার ডেল্টা স্টারটার এর মাধ্যমে চালানো যাবে। কিন্তু কোনও মোটর এর নেমপ্লেট এ যদি লেখা থাকে যে এই মোটর লাইন ভোল্টেজ ৪০০ হলে স্টার এ কানেক্ট করলে তার ফুল আউটপুট পাওয়া যাবে তবে ঐ মোটর কোনও ক্রমেই ডেল্টাতে কানেক্ট করা যাবে না যদি লাইন ভোল্টেজ ৪০০ হয় কারন ঐ মোটর যদি ডেল্টাতে কানেক্ট করা হয় তবে তা 4*3=12 কিলোওয়াট মোটর হিসাবে চলতে শুরু করবে। যেহেতু আমাদের ভোল্টেজ স্থির, তাই এই পরিমান কিলোওয়াট তৈরি করতে গিয়ে মোটর লাইন কারেন্ট নিবে তার রেটেড স্টার লাইন কারেন্ট এর ৩ গুন, এক্ষেত্রে 7.8*3=23.4 A এবং এক্ষেত্রে তখন প্রতি ফেজের ভেতর দিয়ে যাবে 23.4/√3=13.52 A যা প্রায় দিগুন এবং এই পরিমান কারেন্ট মোটরের কয়েল পুড়িয়ে ফেলার জন্য যথেষ্ট।তাই একটু সতর্কতা কিন্তু জরুরী।

পাওয়ারঃ আপনি যদি কখনও মোটরের কারেন্ট বের করার জন্য মোটরের গায়ে লেখা কিলোওয়াট কে ভোল্টেজ আর পাওয়ার ফ্যাক্টরের গুনফল দিয়ে ভাগ করেন তবে যেই মানটা পাবেন তা দেখবেন মোটরের গায়ে লেখা এম্পিয়ার এর সাথে মিলছে না।কারন ৩ ফেজ মোটরের কারেন্ট বের করার জন্য আমরা এই সুত্রটা ব্যবহার করিঃ (KW*1000)/(√3*V*cosΘ) আর এক ফেজ মোটরের বেলায় ব্যাবহার করি:

(KW*1000)/(V*cosΘ)। কিন্ত আমরা অনেকেই এই বিষয়টা জানি না যে মোটরের গায়ে লেখা কিলোওয়াটটা হচ্ছে মোটরের মেকানিকাল আউটপুট যা অনেক সময় হর্স পাওয়ার এ প্রকাশ করা হয়।এবং মোটরের ভেতরে যখন ইলেক্ট্রিক্যাল পাওয়ার মেকানিকাল পাওয়ার এ রুপান্তর হয় তখন কিছু লস হয় যা অনেকেই উপেক্ষা করে থাকেন। একটা মোটর সর্বমোট যেই পরিমান ইলেকট্রিক্যাল পাওয়ার নিয়ে থাকে তাকে বলে মোটরের ইনপুট পাওয়ার এবং একটা মোটরের সর্বমোট কারেন্ট বের করতে হলে আপনাকে প্রথমে এই ইনপুট পাওয়ারটা বের করতে হবে আর তার জন্য আপনাকে আউটপুট পাওয়ারকে মোটরের দক্ষতা দিয়ে ভাগ করতে হবে এবং এই দক্ষতার মান মোটরের গায়ে লেখা থাকবে এভাবেঃ EFF: 85% অথবা NOM. EFF: 85% যার অর্থ হচ্ছে মোটর টা তার ইনপুট পাওয়ার এর ৮৫ ভাগ আউটপুটে দিয়ে থাকে। তো আমি এখন নিশ্চয়ই আশা করতে পারি যে এর পর আপনাদের কারও আর মোটরের কারেন্ট বের করতে ভুল হবে না।

আরো পড়ুন