1. [email protected] : jashim sarkar : jashim sarkar
  2. [email protected] : mohammad uddin : mohammad uddin
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০১:৪৩ অপরাহ্ন

মোটেই সৌভাগ্যবান নন, ভাগ্য তৈরি করে নিয়ে সফল হয়েছেন!

অ্যাডম একাধারে একজন সিঙ্গাপুরিয়ান ব্যবসায় উদ্যোক্তা, সর্বাধিক বিক্রিত বইয়ের লেখক ও একজন পিক পারফরমেন্স ট্রেইনার। তার জন্ম ১৯৭৪ সালের ৮ এপ্রিল।

হাজারো খবরের মাঝে শীর্ষে আসার কারণ হলো মাত্র ২৬ বছর বয়সেই মিলিয়নিয়ার হয়ে ওঠা। পুরো সিঙ্গাপুরে যতজন তরুণ মিলিয়নিয়ার আছে, তাদের মধ্যে তিনি একজন। তিনি একই সাথে বেশ কয়েকটি ব্যবসার সাথে জড়িত আর এ ব্যবসায়িক কর্মই তাকে বিশাল সাফল্য এনে দিয়েছে। তার ব্যবসার ক্ষেত্রগুলো মূলত শিক্ষা, প্রশিক্ষণ, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ও বিজ্ঞাপন। আর তার এ ব্যবসাক্ষেত্রগুলো থেকে বার্ষিক প্রায় ৩০ মিলিয়ন আমেরিকান ডলার।

খুব ক্ষুদ্র পরিসর থেকে শুরু করেন তিনি। আর আজ তিনি অ্যাডম খো লারনিং টেকনোলজি গ্রুপ প্রাইভেট লিমিটেডের এক্সিকিউটিভ চেয়ারম্যান ও প্রধান প্রশিক্ষক। এখানেই শেষ নয়, তিনি প্রায় ৭টি অন্যান্য প্রাইভেট কোম্পানির পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। আর এই অল্প বয়সেই তিনি সিঙ্গাপুর হেলথ প্রমোশন বোর্ডের পরিচালক হিসেবেও আছেন। মাকড়সার জালের মতো ছড়িয়ে থাকা এই মানুষটি ইয়ং প্রেসিডেন্টস অরগানাইজেশনের পরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। এই অগর্ানাইজেশনের সদস্য হওয়ার তিনটি মজার শর্ত রয়েছে। ১. অবশ্যই ব্যবসায়ী হতে হবে। ২. বয়স ৫০-এর কম হতে হবে এবং ৩. ব্যবসা থেকে নূ্যনতম ৯ মিলিয়ন আমেরিকান ডলার আয় থাকতে হবে। আর তার এই তিন শর্তই খুব জোরালোভাবে পূরণ হওয়ায় তিনি আলোচনার শীর্ষে উঠে আসেন।

তিনি ২০০৮ সালে সিঙ্গাপুরের বিজনেস লিডার হিসেবে এনএসইউ বিজনেস স্কুলের পক্ষ থেকে অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন। তার খ্যাতিতে আরো পালক যুক্ত করে তার লেখা ১০টি বই অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে মুদ্রিত হওয়ার খবরটি। তার এমন সাফল্যে অনেকেই তাকে মনে করেন সৌভাগ্যবান। কিন্তু তাকে এই কথাটি বলা হলে তিনি হাসেন, বোঝানোর চেষ্টা করেন যে, তিনি মোটেই সৌভাগ্যবান নন, কিন্তু ভাগ্য তৈরি করে নিতে সফল হয়েছেন। আর তা সম্ভব হয়েছে তার পরিশ্রম ও জোরালো ইচ্ছাশক্তির মাধ্যমে।

আরো পড়ুন