1. [email protected] : jashim sarkar : jashim sarkar
  2. [email protected] : mohammad uddin : mohammad uddin
বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ১১:২৯ পূর্বাহ্ন

সকল ইঞ্জিনিয়াদের অটোক্যাড ডিজাইন জানা কতটা জরুরী!

সময়ের সঙ্গে বাড়ছে চাকরি বাজারের প্রতিযোগিতা। পড়াশোনা শেষ করার পরও মিলছে না চাকরি নামের সোনার হরিণের দেখা। এ চিত্রের বিপরীতে অনেকে আবার পড়ালেখার পাশাপাশি ভালো বেতনের পার্টটাইম চাকরিও করছেন।এ জন্য প্রয়োজন হয় আলাদা কিছু যোগ্যতার। দরকার হয় আলাদা কিছু কোর্স করার।

তাদের জন্য একটি কোর্স অটোকেড। আলাদাভাবে অটোকেড কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ না থাকলেও স্বল্প সময়ের মধ্যে অটোকেড শেখার সুযোগ করে দিয়েছে অনেক ইন্সটিটিউট। আসুন জেনে নিই বিস্তারিত।

অটোকেড :

সিভিল ইঞ্জিয়ারিং তথা বিল্ডিংয়ের ডিজাইন কম্পিউটারে ভিজ্যুয়াল করা যায় অটোকেড দিয়ে। এমনকি সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পাল্লা দিয়ে অটোকেড সফটওয়্যার আপডেট করার মাধ্যমে ইলেক্ট্রনিক ও মেকানিক্যাল ডিজাইন করা যায়। শুধু কি তাই! শুটিং সেট নির্মাণসহ বিভিন্ন ডিজাইনে সঠিক পরিমাপ দেয়ার ক্ষেত্রে অটোকেডের তুলনা নেই।

ক্যারিয়ার গড়তে :

অটোকেড কোর্সটি সম্পন্ন করে আজ অনেকেই তাদের অবস্থা পরিবর্তন করেছে। এমনি একজন কবির আহমেদ। তিনি দুবাইতে স্বল্প বেতনে শ্রমিকের কাজ করতেন। সেখানে চাকরিরত এক বাংলাদেশি কেড অপারেটর থেকে অটোকেড সম্পর্কে জেনে বাংলাদেশ থেকে অটোকেড কোর্স সম্পন্ন করে বর্তমানে ৮০ হাজার টাকা বেতনে কর্মরত। কেউ কেউ কোর্স শেষে ইন্সটিটিউট বা ফার্ম প্রতিষ্ঠা করে ফ্রিল্যান্সিং ব্যবসাও করছেন। কেউবা পড়ালেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ইন্সটিটিউটে লেকচারার ও অনলাইনের আর্নিং সাইটে কাজ করে লাখ টাকা আয় করছেন।

অটোকেড কোর্সটি আপনার ক্রিয়েটিভিটি প্রকাশ ও পার্টটাইম জবে খুবই সহায়ক।এমনটিই বলছিলেন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ডিপিটিআইয়ের লেকচারার বুশরা আহমেদ।

যোগ্যতা :

অটোকেড কোর্সটি করার জন্য নির্দিষ্ট একাডেমিক যোগ্যতা প্রয়োজন না হলেও অটোকেড সফটওয়্যার ও কম্পিউটার সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান থাকতে হবে। পাশাপাশি এডোবি ফটোশপ জানা থাকলে ডিজাইন করার ক্ষেত্রে সহায়তা পাবেন।

সময় ও খরচ :

ভর্তি ফি বাবদ সব ইন্সটিটিউটে সময় ও ফি এক না হলেও কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান থেকে আপনি ৩-৪ মাসে ৫-৭ হাজার টাকায় কোর্সটি সম্পন্ন করতে পারবেন। তাছাড়া অন্যান্য প্রতিষ্ঠান থেকে কোর্সটি শেষ করতে ৩-৪ হাজার টাকা লাগবে।

সনদ :

অটোকেড কোর্সটি গুরুত্বপূর্ণ হওয়ার পাশাপাশি এর সনদও কম গুরুত্বপূর্ণ নয়। বছরের দুই সেশনে কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক অনুষ্ঠিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক স্বীকৃত সনদ পেতে পারেন ।

আয়ের ক্ষেত্র :

অটোকেড অপারেটর বহুজাতিক ব্যবসা ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের ডিজাইন বিভাগ, পোশাক শিল্পসহ অন্যান্য শিল্পে ডিজাইনের জন্য এর কদর রয়েছে। এ ছাড়া রিয়েল এস্টেট কোম্পানি, আর্কিটেকচার ফার্ম, এড ফার্ম, ডিজাইন হাউস, ইলেক্ট্রিক্যাল ও মেকানিক্যাল ডিজাইন ফার্মে কেড অপারেটরের চাহিদা রয়েছে। পাশাপাশি আজকাল বিভিন্ন শপ ও মলে অটোকেডের কাজের ক্ষেত্র বৃদ্ধি পাচ্ছে।

এ ব্যাপারে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান প্রেজেন্টেশনের পরিচালক নওশিন আরা রিয়া বলেন, প্রতিষ্ঠিত ডিজাইন হাউসে কেড অপারেটর ও ডিজাইন পরামর্শকের কদর রয়েছে, এমনকি ব্যক্তিগত পর্যায়ে ফার্ম খুলে স্বাধীনভাবে ডিজাইনসহ বিভিন্ন সেবা দিতে পারেন। তাছাড়া ওডেক্স ও ফ্রিল্যান্সারসহ বিভিন্ন অনলাইন আর্নিং সাইট তো আছেই, যেখানে একজন কেড ডিজাইনার তার সৃষ্টিশীলতা দিয়ে প্রতি মাসে আয় করতে পারেন কাড়ি কাড়ি টাকা।

আরো পড়ুন